মেনু নির্বাচন করুন
সিলেট জেলা শহরের প্রাণকেন্দ্র পাঠানঠুলার লতিফ মঞ্জিল পয়েন্টে ছয় তলা বিশিষ্ট মির্জা ভিলার দ্বিতীয় তলায় জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অফিস অবস্থিত। এই অফিসের মাধ্যমে বিদেশগামী কর্মীদের ডাটাবেইজ ও ফিংগার প্রিন্ট সংরক্ষণ এবং বিদেশে কর্মরত কোন কর্মী মারা গেলে  উক্ত কর্মীর লাশ দেশে আনয়ন, লাশ দাফন খরচ বহন এবং পরিবারিক ক্ষতিপূরণ এই অফিসের মাধ্যমে সম্পন্ন করা হয়। আরো উল্লেখ থাকে যে, মৃত ব্যক্তির বিদেশে বকেয়া বেতন, ইন্সুরেন্স ও মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ আদায় করে তা মৃত ব্যক্তির পরিবারকে প্রদান করা হয়।

সাধারণ তথ্য

সাংগঠনিক কাঠামো

কর্মকর্তাবৃন্দ

ছবিনামপদবিফোনমোবাইলইমেইল
মীর কামরুল হোসেনসহকারী পরিচালক ০৮২১-৭১৭৫৩৪০১৬৭৭-১৩১৯৫২www.Hossen1968@gmail.com
মোঃ আতাউর রহমান উপ-সহকারী পরিচালক ০১৭১৫-০০২৯০৯ demoadsylhet@yahoo.com
মোহাম্মদ মাহবুবুল হাসান জনশক্তি জরিপ অফিসার০৮২১-৭১৭৫৩৪০১৭১৬-১৯৮১২৮ mahabubulhassan73@yahoo.com
মোঃ জামাল উদ্দিন জনশক্তি জরিপ অফিসার০১৭১১-০০৬৬৪৮ demoadsylhet@yahoo.com
মোঃ আবুল খায়ের আজাদজনশক্তি জরিপ অফিসার০১৭১১-৩০০৩৬১ demoadsylhet@yahoo.com
কাজল সরকারজনশক্তি জরিপ অফিসার০১৭৩১-২৮৭০২০demoadsylhet@yahoo.com

কর্মচারীবৃন্দ

ছবিনামপদবি
মোঃ আব্দুল হান্নান স্টেনোটাইপিস্ট কাম কম্পিউটার অপারেটর
মোঃ তাজুল ইসলামঅফিস সহকারী কাম মুদ্রাক্ষরিক
ইন্দ্রজিৎ রায়এমএলএসএস
মোঃ লিয়াকত আলীগার্ড

প্রকল্পসমূহ

যোগাযোগ

সহকারী পরিচালক

জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অফিস

পাঠানটুলা, সিলেট।

ফোনঃ ০৮২১-৭১৭৫৩৪

ই-মেইল: demoadsylhet@yahoo.com

কী সেবা কীভাবে পাবেন

ক্রমিক

নং

                   সেবার নাম

দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা / কর্মচারী

সংক্ষিপ্ত সেবা প্রদান পদ্ধতি

সেবা প্রাপ্তির প্রয়োজনীয় সময় ও খরচ

সংশ্লিষ্ট আইন-কানুন

/ বিধি-বিধান/  নীতিমালা

নির্দিষ্ট সেবা পেতে ব্যর্থ  হলে পরবর্তী প্রতিকারকারী কর্মকর্তা

০১

ফিঙ্গারপ্রিন্ট সম্বলিত স্মার্ট কার্ডের মাধ্যমে বহির্গমণ ছাড়পত্র প্রদান

১. মহা-পরিচালক

২. পরিচালক (বহির্গমন)

৩.উপ-পরিচালক (বহির্গমন)

৪.সহকারী-পরিচালক (বহির্গমন)

৫.সংশ্লিষ্ট অন্যান্য

বিদেশগামী কর্মীদের কেন্দ্রীয় ডাটাবেজে নাম নিবন্ধনপূর্বক ফিঙ্গারপ্রিন্ট এনরোলমেন্ট করা হয়। কর্মীদের গন্তব্য দেশের বিভিন্ন বিষয়ে ব্রিফিং প্রদান করা হয়। অত:পর বহির্গমন ছাড়পত্রের জন্য কর্মীবৃন্দ আবেদন করেন। আবেদন  প্রাপ্তির পর কর্মীদের ভিসার সঠিকতা যাচাই, নিয়োগকর্তার সাথে সম্পাদিত চুক্তিপত্র, অঙ্গীকারনামা যাচাই শেষে বহির্গমন অনুমোদন করা হয় এবং স্মার্ট কার্ডের মাধ্যমে বহির্গমন ছাড়পত্র প্রদান করা হয়।

সর্বোচ্চ ৩ তিন দিন; ২৫০/- - 2750/-  টাকা

১. বর্হিগমন বিধিমালা-২০০২

২. মানব পাচার নিরোধ আইন ২০১২

3.বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসন আইন-২০১৩

মহা-পরিচালক, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি)

০২

বিদেশগামী কর্মীদের অনলাইনে (www.bmet.gov.bd) নাম নিবন্ধন ।

অনলাইন নিবন্ধন চালু আছে     

বিদেশগামী কর্মীদের অন লাইনে আবেদন ফরম পূরণ করে দাখিল করতে হয়। কর্মীদের কেন্দ্রীয় ডাটাবেজে নাম নিবন্ধনপূর্বক নিবন্ধন পত্র প্রদান করা হয়। ওয়েব সাইটের মাধ্যমে যে কোন বিদেশ গমনেচ্ছু কর্মী অনলাইনে আবেদন করতে পারেন।

সবোর্চ্চ ০১ ঘন্টা; 150/-

 

 

১. বর্হিগমন বিধিমালা-২০০২

২. মানব পাচার নিরোধ আইন ২০১২

3.বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসন আইন-২০১৩

মহা-পরিচালক, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি)

০৩

বৈদেশিক কর্মসংস্থান

(রিক্রুটিং এজেন্সির মাধ্যমে বিদেশে কর্মী প্রেরণ)

১. মহা-পরিচালক

২. পরিচালক

৩.উপ-পরিচালক ৪.সহকারী-পরিচালক

৫.সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ

ডিইএমও হতে বিদেশগামী কর্মীদের কেন্দ্রীয় ডাটাবেজে নাম নিবন্ধন পূর্বক ফিঙ্গারপ্রিন্ট এনরোলমেন্ট করা হয়।.গন্তব্য দেশের বিভিন্ন বিষয়ে ব্রিফিং প্রদান। বহির্গমন ছাড়পত্রের আবেদন প্রাপ্তির পর কর্মীদের ভিসার সঠিকতা যাচাই, নিযোগকর্তার সাথে সম্পাদিত চুক্তিপত্র, অঙ্গীকারনামা যাচাই শেষে বহির্গমন অনুমোদনপূর্বক স্মার্ট কার্ডের মাধ্যমে বহির্গমন ছাড়পত্র প্রদান করা হয়। এছাড়া গন্তব্য দেশের বিভিন্ন বিষয়ে ব্রিফিং প্রদান করা হয়।

১ (এক ) মাস হতে 03 মাস পর্যন্ত; সর্বনিম্ন ১০০০০ টাকা হতে সবোর্চ্চ ৮৪,০০০/-  পর্যন্ত।

১.বর্হিগমন বিধিমালা-২০০২

২. মানব পাচার নিরোধ আইন ২০১২

3.বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসন আইন-2013

 

 

 

মহা-পরিচালক, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি)

০৪

বিদেশগামী কর্মীদের কেন্দ্রীয় ডাটাবেজে নাম নিবন্ধন

১. সহকারী-পরিচালক

২. ডাটাবেজ নেটওয়ার্ক কর্মকর্তা

৩. সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কর্মকর্তা/কর্মচারীবৃন্দ (ডিইএমও)

বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে নিবন্ধনের বিষয়ে অবহিতকরণ করা হয়। আগ্রহী কর্মীবৃন্দ অন লাইনে আবেদন ফরম পূরণপূর্বক দাখিল করেন। বিদেশগমনেচ্ছু কর্মীদের সঠিক ভাবে নিবন্ধন  করার পর ডাটেবজে সংরক্ষণ করা হয়। সাথে সাথে নিবন্ধনকৃত কর্মীদের বৈদেশিক চাকুরি সম্পর্কে তথ্য প্রদান করা হয়।

সর্বোচ্চ ৩ দিন; 150-২৫০  টাকা

 

3. বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসন আইন-২০১৩

২. বর্হিগমন বিধিমালা-২০০২

৩. মানব পাচার নিরোধ আইন ২০১২

৪. বাংলাদেশ শ্রম আইন-২০০৬

 

মহা-পরিচালক, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি)

০৫

জিটুজি পদ্ধতিতে সরকারিভাবে মালয়েশিয়ায় কর্মী প্রেরণ

১. মহাপরিচালক

২. সহকারী পরিচালক

৩. ডাটাবেজ করার সাথে সম্পৃক্ত কর্মর্তা/কর্মচারী

বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে নিবন্ধনের বিষয়ে অবহিতকরণ করা হয়। কর্মীবৃন্দ অন লাইনে আবেদন ফরম পূরণ ও দাখিল করেন। ইউনিয়ন, পৌরসভা,সিটি কর্পোরেশন ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্র এবং  জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অফিসের মাধ্যমে  বিদেশগামী কর্মীদের কেন্দ্রীয় ডাটাবেজে নাম নিবন্ধন করা হয়। নিবন্ধিত কর্মীদের বাছাই করে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়। প্রশিক্ষণ শেষে মালয়েশিয়ায়  ফিংগার ইমপ্রেশন, পাসপোর্ট ও ছবি সম্বলিত ডাটা প্রেরণ করা হয়ে থাকে।  মালয়েশিয়া সরকার হতে ভিসা উইথ রেফারেন্স প্রাপ্তির পর কর্মীদের এসএমএস ও টেলিফোনের মাধ্যমে  অবহিত করে পাসপোর্ট ও প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট সংগ্রহ করতে বলা হয়। মালয়েশিয়া দূতাবাস হতে ভিসা স্ট্যাম্পিং এবং স্মার্ট কার্ডের মাধ্যমে বহির্গমন ছাড়পত্র প্রদান করা হয়। মালয়েশিয়াগামী কর্মীদের  এসএমএস ও টেলিফোনের মাধ্যমে ফ্লাইট সিডিউল  অবহিত করা হয়।   মালয়েশিয়াগামী কর্মীদের  ব্রিফিং শেষে বিএমইটির অফিসারসহ মালয়েশিয়ায় পৌছানো নিশ্চিত করা হয়।

১ -৬ মাস পর্যন্ত; জিটুজি পদ্ধতিতে মালয়েশিয়ায় কর্মী প্রেরণে অভিবাসন ব্যয় ২৮,৫০০-৩১৫০০/-

১. বর্হিগমন বিধিমালা-২০০২

২. মানব পাচার নিরোধ আইন ২০১২

3. বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসন আইন-২০১৩

 

মহা-পরিচালক, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি)

০৬

বিদেশগামী কর্মীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা

১. মহা-পরিচালক

২. পরিচালক (প্রশিক্ষণ)

৩.উপ-পরিচালক (প্রশিক্ষণ)

৪. সহকারী-পরিচালক (প্রশিক্ষণ)

৫. সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ (প্রশিক্ষণ)

বিদেশগামী নিবন্ধিত কর্মীদের প্রায় ৪৫ টি বৃত্তিমূলক ট্রেডে স্বল্প ও মধ্য মেয়াদী প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়। ০২ বছর মেয়াদী এসএসসি ভোকেশনাল কোর্স, ০৬ মাস মেয়াদী গার্মেন্টস ও কম্পিউটার কোর্স এবং ০৪ বছর মেয়াদী মেরিন ডিপ্লোমা কোর্স প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়।

 

 

১. ৭দিন থেকে ২১ দিন

২. ১ মাস থেকে ৬ মাস।

২. ১বছর থেকে ৪ বছর; 300/-  - 18000/- টাকা

 

১. বর্হিগমন বিধিমালা-২০০২

২. মানব পাচার নিরোধ আইন ২০১২

৩. শিক্ষানবীসি অ্যাক্ট-১৯৬২

৪. বাংলাদেশ শ্রম আইন-২০০৬

 

মহা-পরিচালক, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি)

০৭

অনলাইন অভিযোগ (www.ovijogbmet.org) গ্রহণ নিষ্পত্তি

১. মহা-পরিচালক

২. পরিচালক (কর্মসংস্থান)

৩.উপ-পরিচালক (কর্মসংস্থান)

অন লাইনে বা সরাসরি ডিইএমও কিংবা বিএমইটিতে অভিযোগ দাখিল করতে হয়। অনলাইনে বা  সরাসরি প্রাপ্ত অভিযোগ প্রাথমিক যাচাই শেষে অভিযোগ তদন্তে তদন্ত কমিটি গঠণ এবং সেবাগ্রহীতাকে অবহিত করা হয়। তদন্ত বা অনধিক ০৩ (তিন) টি শুনানি শেষে অভিযোগ নিষ্পত্তি করা হয়। প্রতিষ্ঠিত অভিযোগের ক্ষেত্রে সেবাগ্রহীতাকে ক্ষতিপূরণ প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়ে থাকে।

সর্বোচ্চ ৩ মাস; ১। বিনা ফি-তে অভিযোগকারীদের অভিযোগ গ্রহণ ও নিষ্পত্তি করা হয়।

২। রিক্রুটিং লাইসেন্স

১. বর্হিগমন বিধিমালা-২০০২

২. রিক্রুটিং এজেন্টস আচরণ বিধিমালা-২০০২

৪.বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসন আইন-২০১৩

মহা-পরিচালক, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি)

০৮

রিক্রুটিং এজেন্সীর কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণ, লাইসেন্স প্রদান ও নবায়ন কার্যক্রম

১. মহা-পরিচালক

২. পরিচালক (কর্মসংস্থান)

৩. উপ-পরিচালক (কর্মসংস্থান)

৪.সহকারী-পরিচালক (কর্মসংস্থান)

৫. সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ (কর্মসংস্থান)

রিক্রুটিং এজেন্সীকে লাইসেন্স প্রাপ্তি বা নবায়নের জন্য নির্ধারিত ফরম পূরণপূর্বক বিএমইটিতে আবেদনপত্র  দাখিল করতে হয়। আবেদনপত্র প্রয়োজনীয় যাচাই-বাছাই শেষে তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ ও রিক্রুটিং এজেন্সীকে অবহিত করা হয়। তদন্ত কর্মকতা কর্তৃক রিক্রুটিং এজেন্সী অফিস পরিদর্শ পূর্বক পরিদর্শন প্রতিবেদন দাখিল করেন। পরিদর্শন প্রতিবেদনসহ পরবর্তী কার্যার্থে রিক্রুটিং এজেন্সির আবেদনপত্র মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়। মন্ত্রণালয়ের উচ্চ-পর্যায়ের কমিটি কর্তৃক  লাইসেন্স প্রদান, নবায়ন বা বাতিলের  সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। মন্ত্রণালয় বা বিএমইটি কর্তৃক সেবাগ্রহীতাকে অবহিত করা হয়ে থাকে।

০৩ থেকে ০৬ মাস; প্রাপ্তি/নবায়নের ক্ষেত্রে-

ক) জামানত        -১৫ লক্ষ টাকা

খ) কল্যাণ তহবিল-   ১ লক্ষ টাকা

গ)  নবায়ন ফি     - ৪০ হাজার টাকা

১. বর্হিগমন বিধিমালা-২০০২

২. রিক্রুটিং এজেন্টস আচরণ বিধিমালা-২০০২

৩. বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসন আইন-২০১৩৪. মানব পাচার নিরোধ আইন ২০১২

 

 

মহা-পরিচালক, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি)

০৯

বিদেশে মৃত প্রবাসী কর্মীদের লাশ দেশে ফেরত আনাসহ বকেয়া ও ক্ষতিপূরণ আদায় এবং আর্থিক সহায়তা প্রদান

১. মহা-পরিচালক

২. পরিচালক (কল্যাণ)

৩. উপ-পরিচালক (কল্যাণ)

৪.সহকারী-পরিচালক (কল্যাণ)

৫. সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ (কল্যাণ)

বিদেশে কর্মরত অবস্থায় কোন কর্মী মৃত্যু বরণ করলে সে দেশে বাংলাদেশী দূতাবাসের মাধ্যমে লাশ বাংলাদেশে প্রেরণের ব্যবস্থা করা হয়। সংশ্লিষ্ট নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ করে কর্মীর বকেয়া পাওনা এবং নিয়োগের চুক্তি/শর্ত অনুযায়ী ক্ষতি পূরণ আদায়ের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয় এবং প্রাপ্য অর্থ মৃত কর্মীর অভিভাবকদের নিকট হস্তান্তর করা হয়।

 

পরিস্থিতি অনুযায়ী লাশ আনার জন্য   ১-৫ দিন এবং নিয়োগের শর্ত/চুক্তি অনুযায়ী ক্ষতি পূরণের বিষয়টি নিষ্পত্তি হয়  

 

কল্যাণ  বিধিমালা-২০০২

মহা-পরিচালক, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি)

১০

বিদেশে আটেক পড়া বাংলাদেশী কর্মীদের দেশে ফেরত আনা।

১. মহা-পরিচালক

২. পরিচালক (কল্যাণ)

৩. উপ-পরিচালক(কল্যাণ)

৪.সহকারী-পরিচালক(ডিএমও)

৫. সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ(কল্যাণ ও (ডিএমও)

 

বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশের দূতাবাসের মাধ্যমে অথবা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির আত্মীয় স্বজনদের মাধ্যমে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী আটকে পড়া বাংলাদেশি নাগরিকদের তথ্য সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান/ সংস্থার মাধ্যমে তাদের দেশে ফেরত আনার ব্যবস্থা করা হয়।

 

৭দিন থেকে ০৩ মাস।

নাই

1. কল্যাণ  বিধিমালা-২০০২

১. বর্হিগমন অধ্যাদেশ-১৯৮২ ও বর্হিগমন বিধিমালা-২০০২

২. মানব পাচার নিরোধ আইন ২০১২

৩. বাংলাদেশ শ্রম আইন-২০০৬

৪.বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসন আইন-২০১৩

মহা-পরিচালক, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি)

১১

বিমানবন্দরে বিদেশগামী কর্মীদের নিরাপদে বিদেশ গমন ও প্রত্যাগমনে সহায়তা প্রদান

৪.সহকারী-পরিচালক

(বিমান বন্দর)

৫. সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ (কল্যাণ ও বিমান বন্দর)

 

 

বিমানবন্দরে বিদেশগামী কর্মীদের নিরাপদে বিদেশ গমন ও প্রত্যাগমনে জন্য এবং যথাযথ ভাবে কর্মে নিয়োজিত হওয়ার জন্য পূর্বেই সার্বিক বিষয়ে ব্রিফিং প্রদান করা হয়। অধিকন্তু সরকারি ভাবে যখন কর্মী বিদেশে যায় আ বিদেশ থেকে দেশে আসে তখন বিমানবন্দরে গিয়ে তাদের প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান করা হয়।

 

 

1 w`b; নাই

1. কল্যাণ  বিধিমালা-২০০২

১. বর্হিগমন অধ্যাদেশ-১৯৮২ ও বর্হিগমন বিধিমালা-২০০২

২. মানব পাচার নিরোধ আইন ২০১২

৩. বাংলাদেশ শ্রম আইন-২০০৬

৪.বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসন আইন-২০১৩

 

মহা-পরিচালক, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি)

১২

প্রবাসীদের সন্তানদের জন্য শিক্ষা-বৃত্তি প্রদান

১. মহা-পরিচালক

২. পরিচালক (কল্যাণ)

৩. উপ-পরিচালক (কল্যাণ)

৪.সহকারী-পরিচালক (ডিএমও)

৫. সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ(কল্যাণ ও (ডিএমও)

 

 

বিজ্ঞপ্তি প্রচারের মাধ্যমে আবেদন আহবান করা হয়।  প্রবাসী কর্মীদের সন্তান কর্তৃক সংশ্লিষ্ট জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অফিসে শিক্ষাবৃত্তির আবেদন দাখিল করতে হয়।  সংশ্লিষ্ট জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অফিস আবেদন যাচাই-বাছাই শেষে বিএমইটিতে প্রেরণ করে থাকে। ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ড কর্তৃক শিক্ষাবৃত্তির আবেদন অনুমোদন এবং আবেদনকারীদের অবহিত করা হয় এবং শিক্ষা বৃত্তির অর্থ প্রদান করা হয়।

 

১। সর্বোচ্চ ০৩ মাস।

নাই

1. কল্যাণ  বিধিমালা-২০০২

১. বর্হিগমন অধ্যাদেশ-১৯৮২ ও বর্হিগমন বিধিমালা-২০০২

২. মানব পাচার নিরোধ আইন ২০১২

৩. বাংলাদেশ শ্রম আইন-২০০৬

৪.বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসন আইন-২০১৩

মহা-পরিচালক, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি)

১৩

মোবাইল ফোনে ‘প্রবাসী কর্মী সেবা’ কার্যক্রম। ( বাংলালিংক ২২৩৩) 

বাংলালিংক কর্তৃপক্ষ

ফোন কল সেবা (বাংলালিংক ২২৩৩) 

তাৎক্ষণিক; কলচার্জ অনুযায়ী

1. কল্যাণ  বিধিমালা-২০০২

১. বর্হিগমন অধ্যাদেশ-১৯৮২ ও বর্হিগমন বিধিমালা-২০০২

২. মানব পাচার নিরোধ আইন ২০১২

৩. বাংলাদেশ শ্রম আইন-২০০৬

৪.বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসন আইন-২০১৩

মহা-পরিচালক, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি)

১৪

ওয়ান স্টপ সার্ভিস

(ফিঙ্গারপ্রিন্ট সম্বলিত স্মার্ট কার্ডের মাধ্যমে বহির্গমন ছাড়পত্র প্রদান)

১. মহা-পরিচালক

২. পরিচালক (বহির্গমন)

৩.উপ-পরিচালক (বহির্গমন)

৪.সহকারী-পরিচালক (বহির্গমন)

৫.সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কর্মকর্তা কর্মচারীবৃন্দ (বহির্গমন)

বিদেশগামী কর্মীদের কেন্দ্রীয় ডাটাবেজে নাম নিবন্ধন করে ফিঙ্গারপ্রিন্ট এনরোলমেন্ট করা হয়। কর্মীদের গন্তব্য দেশের বিভিন্ন বিষয়ে ব্রিফিং প্রদান করা হয়। বহির্গমন ছাড়পত্রের আবেদন প্রাপ্তির পর কর্মীদের ভিসার সঠিকতা যাচাই, নিযোগকর্তার সাথে সম্পাদিত চুক্তিপত্র, অঙ্গীকারনামা যাচাই শেষে বহির্গমন অনুমোদন দেয়া হয় এবং স্মার্ট কার্ডের মাধ্যমে বহির্গমন ছাড়পত্র প্রদান করা হয়ে থাকে।

সর্বোচ্চ ৩ তিন দিন; ২৫০ টাকা থেকে 2750  টাকা।

১. বর্হিগমন অধ্যাদেশ-১৯৮২ ও বর্হিগমন বিধিমালা-২০০২

২. মানব পাচার নিরোধ আইন ২০১২

৩.বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসন আইন-২০১৩

মহা-পরিচালক, জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি)

প্রদেয় সেবাসমুহের তালিকা

সেবা ক্রমিক নং

সেবার নাম

সেবার পর্যায়

(অধিদপ্তর/ জেলা)

১।

ফিঙ্গারপ্রিন্ট সম্বলিত স্মার্ট কার্ডের মাধ্যমে বহির্গমণ ছাড়পত্র প্রদান

অধিদপ্তর (বিএমইটি)

২।

বিদেশগামী কর্মীদের অনলাইনে (www.bmet.gov.bd) নাম নিবন্ধন ও টেলিটক মোবাইলের মাধ্যামে ফি প্রদান

অধিদপ্তর/জেলা পর্যায়ে/দেশব্যাপী

৩।

বিদেশগামী কর্মীদের কেন্দ্রীয় ডাটাবেজে নাম নিবন্ধন

জেলা/অধিদপ্তর (বিএমইটি)

৪।

বিদেশগামী কর্মীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা

জেলা

৫।

জিটুজি পদ্ধতিতে সরকারিভাবে মালয়েশিয়ায় কর্মী প্রেরণ

অধিদপ্তর/জেলা /দেশব্যাপী

৬।

অভিযোগ (www.ovijogbmet.org) গ্রহণ ও নিষ্পত্তি

অধিদপ্তর/জেলা

৭।

রিক্রুটিং এজেন্সীর কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণ, লাইসেন্স প্রদান ও নবায়ন কার্যক্রম

অধিদপ্তর

৮।

বিদেশে মৃত প্রবাসী কর্মীদের লাশ দেশে ফেরত আনাসহ বকেয়া ও ক্ষতিপূরণ আদায় এবং আর্থিক সহায়তা প্রদান

অধিদপ্তর (বিএমইটি)/জেলা

৯।

বিদেশে আটেক পড়া বাংলাদেশী কর্মীদের দেশে ফেরত আনা

অধিদপ্তর /জেলা

১০।

প্রবাসীদের সন্তানদের জন্য শিক্ষা-বৃত্তি প্রদান

অধিদপ্তর/জেলা

১১।

মোবাইল ফোনে ‘প্রবাসী কর্মী সেবা’ কার্যক্রম। (বাংলালিংক ২২৩৩) 

দেশব্যাপী

১২।

ওয়ান স্টপ সার্ভিস

অধিদপ্তর (বিএমইটি)

১৩।

নারী অভিবাসী কর্মীদের তথ্য প্রদান

অধিদপ্তর (বিএমইটি)/জেলা

১৪।

বিদেশগামী কর্মীদের বিদেশ গমনের পূর্বে গন্তব্য দেশের আইন-কানুন, খাদ্যাভাস, ভাষা, সামাজিক-সাংস্কৃতিক বিষয়াদি, ডিপার্চার ব্রিফিং প্রদান

অধিদপ্তর (বিএমইটি)/জেলা

১৫।

বিদেশগামী কর্মীদের ভিসার সঠিকতা যাচাইকরণ

অধিদপ্তর (বিএমইটি)/জেলা

১৬।

বিদেশগামী কর্মীদের অভিবাসন ব্যয় নির্বাহে প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের মাধ্যমে ঋণ প্রদান

অধিদপ্তর (বিএমইটি)/জেলা

১৭।

বিদেশস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসসমূহের শ্রম উইংয়ের মাধ্যমে প্রবাসী ও অভিবাসী কর্মীদের সার্বিক সহায়তা ও কল্যাণমূলক কার্যক্রম গ্রহণ ও বাস্তবায়ন

দূতাবাস/অধিদপ্তর (বিএমইটি)/জেলা

১৮।

অভিবাসী আইন, অভিবাসীর অধিকার ও মর্যাদা সন্মন্ধে প্রচার ও সচেতনতামূলক কার্যক্রম গ্রহণ  

অধিদপ্তর (বিএমইটি)/জেলা

তথ্য অধিকার

সিটিজেন চার্টার

১।

বিদেশে কর্মরত অবস্থায় মৃত্যুবরনকারী কর্মীদের লাশ দাফন সংক্রান্ত লিখিত মতামত সংগ্রহ করন পূর্বক ব্যুরোতে প্রেরণ।

২।

(ক)

 লাশ পরিবহন ও দাফন খরচের আর্থিক সাহায্য  বাবদ বিদেশে মৃত্যুবরনকারীদের ১৯/০৮/২০১০ইং তারিখ পর্যন্ত ওয়াশিগনকে ২০,০০০/-টাকা এবং উক্ত তারিখের পর হইতে ৩৫,০০০/- টাকা (ডেড বডি বাংলাদেশে আনয়ন স্বাপেক্ষে) প্রাপ্তির নিমিত্তে এয়ার ওয়েজ  বিলের মূল/ফটোকপি, মৃতুসনদ,পাসপোর্টের ফটোকপি, ওয়ারিশ সনদসহ আবেদনপত্র গ্রহন এবং সরজমিনে ওয়ারিশ সনাক্তাকরন পূর্বক তদন্ত প্রতিবেদনসহ চেক গ্রহনের ক্ষমতা প্রাপ্ত ব্যক্তির চেয়ারম্যান কর্তৃক ২ কপি এবং সহকারী পরিচালক কর্তৃক ২ কপি সত্যায়িত ছবি সহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জনশক্তি ব্যুরোতে প্রেরন করা হয়।

 

(খ)

বর্তমানে বিমান বন্দর হইতে লাশ পরিবহনের ৩৫,০০০/- টাকার চেক প্রাপ্তির নিমিত্তে স্থানীয় চেয়ারম্যান কর্তৃক ওয়ারিশ সনদ এবং চেক গ্রহনের জন্য ক্ষমতা প্রাপ্ত ব্যক্তির চেয়ারম্যান কর্তৃক ২ কপি সত্যায়িত ছবি জমা দিতে হইবে।

৩।

মৃত্যু জনিত ক্ষতিপূরন/বকেয়া পাওনা ও আর্থিক সাহায্যের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদনপত্র গ্রহন ও ব্যুরোতে প্রেরন করা হয়।

৪।

মৃত্যের ওয়ারিশ কর্তৃক মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরন/বকেয়া পাওনা, আর্থিক সাহায্য আদয়ের জন্য মামলা পরিচালনার নিমিত্তে মৃতের ওয়ারিশানগন দূতাবাসকে প্রদত্ত পাওয়ার অব এটর্নী, অভিবাবকত্ব সনদ, বৈধ উত্তরাধিকারী সনদ সংক্রান্ত কাগজপত্র দপ্তরে দাখিল করার পর তথ্যাদির সঠিকতা যাচাই করে মৃতের ঠিকানায় সরজমিনে গমন পূর্বক ওয়ারিশানগনকে সনাক্ত করিয়া তদন্ত প্রতিবেদনসহ ব্যুরোতে সকল কাগজপত্র প্রেরন করা হয়।

৫।

বিদেশে মৃত্যুবরনকারীর ওয়ারিশগন সংশ্লিষ্ট দেশ হইতে কোন প্রকার ক্ষতি পূরন/আর্থিক সাহায্য না পাইলে দুতাবাস/কনসুলারের সুপারিশের ভিত্তিতে মৃতের ওয়ারিশগন ০৯/০৫/২০০৯ইং তারিখ পর্যন্ত ১,০০,০০০/-(এক লক্ষ) টাকা এবং উক্ত তারিখের পর মৃত্যুবরণকারীগনের ওয়ারিশগন ২,০০,০০০/-(দুই লক্ষ) টাকা জনশক্তি ব্যুরোর কল্যাণ তহবিল হইতে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা স্বাপেক্ষে আর্থিক সাহায্য/অনুদান পায়।

৬।

জনশক্তি ব্যুরো হইতে পরিবহন ও দাফন খরচ/আর্থিক অনুদান ও মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরন/বকেয়া পাওনার প্রাপ্ত চেক বন্ডে প্রদত্ত জামিনদাতা ও ২ জন স্বাক্ষীর উপস্থিতিতে ছবি গ্রহন পূর্বক ওয়ারিশদের মধ্যে হস্তন্তর করা হয়।

৭।

বিদেশে গমেনেচ্ছুক  কর্মীদের ইন্টারনেটে নাম নিন্ধনকনের জন্য নিম্ন বর্ণিত কাগজপত্র জমা দিতে হবে:-

 

(ক)

নির্ধারিত আবেদন ফরম।

 

(খ)

পাসপোর্ট সাইজের (সত্যায়িত) রঙ্গিন ছবি-০২(দুই)কপি।

 

(গ)

পাসপোর্ট /ভিসার ফটোকপি (যদি থাকে)।

 

(ঘ)

পৌরসভার মেয়র/কাউন্সিলর/ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের নিকট হইতে নাগরিকত্ব সনদপত্র/জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি।

 

(ঙ)

সকল শিক্ষাগত যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতার সনদ পত্রের সত্যায়িত ফটোকপি।

 

(চ)

মহাপরিচালক,জনশক্তি,কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো,৮৯/২ কাকরাইল,ঢাকার বরাবরে সোনালী ব্যাংক কর্পোরেট শাখা,মনোহরপুর,কুমিল্লা হইতে ৮০/- (আশি) টাকার পে-অর্ডার সংগ্রহ করে কাগজ পত্রের সাথে জমা দিতে হবে।

৮।

৮ম শ্রেনী হইতে দশম শ্রেনী পর্যন্ত ছাত্র/ছাত্রীগনকে ভবিষ্যতে লেখাপড়ার উপর পেশানির্দেশনা প্রদান।

৯।

শ্রম বাজার সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ।

১০।

আত্ন কর্মসংস্থান প্রকল্পঃ

 

(ক)

বিত্তহীন ঋণ প্রকল্প (বর্তমানে উক্ত ঋণ কার্য্যক্রম চালু নাই)।

 

(খ)

মাইক্রো এন্টারপ্রাইজ কর্মসূচীর আওতায়  (বর্তমানে ঋণ কার্যক্রম বন্ধ আছে)।

১১।

স্থানীয় চাকুরীর জন্য শিক্ষিত বেকার যুবকদের নাম তালিকাভূক্তিকরন এবং নিয়োগ কর্তার চাহিদা মোতাবেক যোগ্যতার ভিত্তিতে প্রার্থী উপস্থাপন।

১২।

চাকুরী সংক্রান্ত তথ্যাদি সংগ্রহের জন্য নিয়োগকর্তাদের সহিত যোগাযোগ।

১৩।

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি সংগ্রহ ও তথ্য কেন্দ্রে সংরক্ষন।

১৪।

বিদেশ গমনেচ্ছু কর্মীগনকে বিভিন্ন দেশের ভাষা সহ বিদেশ গমনের পূর্বে ও পরে বিভিন্ন বিষয়ে করনীয় সম্পর্কে লিফলেট ও পোষ্টারের মাধ্যমে সচেতন করা হইতেছে।

১৫।

প্রশাসন ও বিভিন্ন অফিস, স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসাসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের সক্রিয় সহযোগীতায় প্রতি বৎসর অভিবাসীদের সম্মান জানানোর লক্ষ্যে ১৮ ডিসেম্বর জাতিসংস ঘোষিত বিশ্ব অভিবাসী দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন করা হয়।

১৬।

পুরুষ ছেলেদের পাশাপাশি মহিলা গৃহকর্মীগনকে প্রশিক্ষনের মাধ্যমে বিদেশে প্রেরনের উদ্যোগ গ্রহন করা হইতেছে।

১৭।

প্রশাসনসহ যে কোন আলোচনা সভা /সেমিনারে অংশ গ্রহন করা হয়।

বিজ্ঞপ্তি

ডাউনলোড

আইন ও সার্কুলার